শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর ২০২২, ০৪:৩০ অপরাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
অগ্নিদগ্ধ ছেলেকে দেখতে সীতাকুণ্ডে যেতে পারছেন না বাহুবলের সেফু মিয়া মাধবপুরে বঙ্গমাতা বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্ভোধন মাধবপুরে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হবিগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ লাইন টেকনিশিয়ানের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতর অভিযোগ মাধবপুরে বৈকুন্ঠপুর চা শ্রমিক পরিবারের মাঝে চাল বিতরণ মাধবপুরে দুই সাংবাদিক কে চাঁদাবাজির মামলা দিয়ে হয়রানির চেষ্টা নেপাল ইন্টারন্যাশনাল আইকনিক এ্যাওয়ার্ড পেলেন ১১ বাংলাদেশী মাধবপুরে ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের পরিচিতি ও আলোচনা সভা পুলিশের সোর্স কে কুপিয়ে ক্ষত বিক্ষত করেছে মাদক ব্যবসায়ীরা পিএইচ.ডি. ডিগ্রী অর্জন করায় মুহাম্মদ আশরাফুল আলম হেলালকে সংবর্ধনা
নোটিশ ::
দৈনিক হবিগঞ্জের বাণী পত্রিকার সকল প্রতিনিধি ও গ্রাহকদের কে আমাদের ফেইজবুক ফেইজ  এ লাইক দিয়া আমাদের সাথে সংযুক্ত থাকার জন‌্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হল। আমাদের ফেইজবুক ফেইজ: https://www.facebook.com/habiganjerbani  অনুরুধ ক্রমে:  সম্পাদক(Online),দৈনিক হবিগঞ্জের বাণী।

সিন্ডিকেটের থাবায় আজমিরীগঞ্জের কৃষকরা

রিপোর্টার / ৩৩০ বার
আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১ মে, ২০২০

মোঃ আবু হেনা, আজমিরীগঞ্জ থেকে ॥ প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চল আজমিরীগঞ্জের অধিকাংশ লোকজনেরই জীবিকা নির্বাহের প্রধান উপায় বোরো ফসল। রোপা এবং বোনা আমন চাষ করলেও মূল উপার্জন এই বোরো ফসল থেকেই।

প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে ফসল ঘরে উঠানো কৃষকের কাছে নতুন কোনও বিষয় না। অকাল বন্যায় তলিয়ে গেলেও কৃষকরা হার মানেন না। পুনরায় ফলান সোনালী ফসল। কিন্তু এই হার যদি মানতে হয় মানবসৃষ্ট সমস্যার কাছে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক। যেমনটা ঘটে চলেছে বিগত কয়েক বছর যাবৎ। ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন প্রান্তিক কৃষকগণ। লোকসানের মুখে পড়ে পেশা বদল করতে বাধ্য হচ্ছেন অনেক কৃষক। চলতি বছর করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়েও আশানুরূপ দাম পাচ্ছেন না কৃষকরা। এনিয়ে তাদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গেল কয়েক বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর এবার বুক ভরা আশা নিয়ে বোরো আবাদ করেছেন কৃষকরা। ধান কাটার শুরুতে আগাম বন্যার আশঙ্কা থাকলেও এখন পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। দিনরাত পরিশ্রম করে গড়ে তুলা হচ্ছে সোনার ফসল। অথচ স্থানীয় কিছু মহাজনদের সিন্ডিকেটের কারণে ধানের দাম কমে গেছে।

কৃষক আলতাব হোসেন ও রাজমোহন মিয়া জানান, কনকনে শীতের মধ্যে পরিবারের সদস্য ও শ্রমিকদের নিয়ে ইরি/বোরো জমি চাষ করেছি বর্গা নিয়ে। বিঘাপ্রতি খরচ হয়েছে ৭ হাজার টাকা। অন্যদিকে পরিবারের সদস্যদের শ্রমতো রয়েছেই। বিঘায় ফলন হয়েছে ২০ মন করে। বিক্রি করতে হচ্ছে মনপ্রতি ৫০০ টাকা। সবশেষে বিঘাপ্রতি পাওয়া যাচ্ছে ১০ হাজার টাকার ধান। যেটুকু লাভ হয়, সেটুকু দিয়ে দিতে হয় ধান কাটার শ্রমিক এবং আনুষাঙ্গিক খরচ বাবত। সবশেষে থাকে শুধু গরুর খাবার হিসেবে ব্যবহৃত খরটুকুই।

শুধু আলতাব হোসেন আর রাজমোহন মিয়াই নন। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ২০ জন কৃষক নিজেদের পেশা বদল করার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন।

উপজেলার হিলালপুর গ্রামের কৃষক ওয়ারিশ মিয়া জানান, শুরু থেকেই আবহাওয়া অনকূলে থাকায় এবার ভাল ফলন হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ শুরুর পূর্বেই ঘরে উঠবে ধান। শুরুর দিকে মনটা ভাল থাকলেও বর্তমানে ধানের দাম কমে যাওয়ায় সারা বছর স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে কিভাবে চলবেন সেই চিন্তা করছেন তিনি।

তিনি আরো জানান, শুরুর দিকে ধানের দাম ভাল থাকলেও এলাকার কিছু ব্যবসায়ী একাট্টা হয়ে ধানের দাম কমিয়ে দিয়েছেন। এ বিষয়ে তিনি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ কারফুল ইসলাম জানান, অত্র উপজেলায় আবাদি জমি ১৫ হাজার ৪০০ হেক্টর। বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে ১৫ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে। বর্তমানে ৫২ শতাংশ জমির ধান কর্তন করা হয়েছে। বর্তমান বৈরী আবহাওয়ার কারণে ৮০ শতাংশ ধান পাকার পরই কর্তনের জন্য কৃষকদের প্রতি আহব্বান জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com