শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২৩ অপরাহ্ন
Logo
নোটিশ ::
দৈনিক হবিগঞ্জের বাণী পত্রিকার সকল প্রতিনিধি ও গ্রাহকদের কে আমাদের ফেইজবুক ফেইজ  এ লাইক দিয়া আমাদের সাথে সংযুক্ত থাকার জন‌্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হল। আমাদের ফেইজবুক ফেইজ: https://www.facebook.com/habiganjerbani  অনুরুধ ক্রমে: নির্বাহী সম্পাদক,দৈনিক হবিগঞ্জের বাণী।

নবীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যান মুকুল স্বপদে বহাল

ইকবাল হোসেন তালুকদার, নবীগঞ্জ / ১২৩ বার
আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের সাময়িক বহিষ্কারাদেশ স্থগিত করেছেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। রোববার (২৩ আগস্ট) হাইকোর্টের বিচারপতি এম. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি এম. মাহমুদ হাসান তালুকদারের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ প্রদান করেন।

ইমদাদুর রহমান মুকুলের পক্ষে রিট মামলাটি পরিচালনা করেন সুপ্রিমকোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল মতিন খসুরুজ্জামান।

স্বপদে বহাল হওয়ার পর বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর ) গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদে এক সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন দেবপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মুহিত চৌধুরী, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহমুদ আলম মাহবুব, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজমান আলী, সাবেক মেম্বার আশরাফ আলী প্রমুখ।

চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল তার বক্তব্য বলেন, আমি ছাত্র জীবন থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্রলীগ নেতা থেকে আজ আমি নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি। গজনাইপুর ইউনিয়নের একাধিক বার আপনাদের ভালবাসায় ও সহযোগিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি।

চাল আত্মসাতের যে অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে উঠেছিল, এই অভিযোগের কারণে আমি ২ মাস ১৫ দিন চেয়ারম্যান পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার ছিলাম। আমি যদি চাল আত্মসাৎ করতাম তাহলে কি আমার চেয়ারম্যান পদ ফিরে পেতাম। আমি তখনও বলেছি, এখনও বলছি, আমি চাল আত্মসাৎ করি নাই। একটি মহল আমার আমার সম্মানহানি করার জন্য আমার নামে এই আত্মসাতের মিথ্যা অভিযোগ করেছিল। সঠিক তদন্ত করে করার পর আমার নামে যে আত্মসাতের অভিযোগ ছিল তা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। তাই আমি আমার চেয়ারম্যানপদ ফিরে পেলাম।

উল্লেখ্য, সরকারের ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির তালিকা প্রণয়নে গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুকুলের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ ওঠে এবং বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সেটি প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়। এর প্রেক্ষিতে নবীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। গঠিত তদন্ত কমিটি সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরে উপজেলা প্রশাসন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ পেশ করে। ওই সুপারিশের প্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় গত ৭ জুলাই এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলকে সাময়িক বরখাস্ত করে।

পাশাপাশি চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলকে কেন এ পদ থেকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে না মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।

নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল ওই আদেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে রিট পিটিশন দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের সাময়িক বহিষ্কারাদেশ স্থগিত ঘোষণা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com